ঢাকা, মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ কক্ষপথের অবস্থানে পৌঁছেছে * মুক্তিযোদ্ধার অসম্মানজনক দাফনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : মোজাম্মেল হক * ৭১তম বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলন শুরু   |   শিক্ষা : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স পরীক্ষার ফরম পূরণ ২৩ মে শুরু   |   প্রধানমন্ত্রী : বাগেরহাট-৩ আসনের উপনির্বাচনে হাবিবুন নাহার আওয়ামী লীগের প্রার্থী * যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, এতিম ও আলেম-ওলামাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ইফতার * এইচবিআরআই খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন   |    জাতীয় সংবাদ : রাজীবের পরিবারকে কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ : আপিলের আদেশ কাল * খালেদা জিয়ার মুক্তির সঙ্গে আগামী জাতীয় নির্বাচনের কোন সম্পর্ক নেই : ড. হাছান মাহমুদ * বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন যেকোনো দেশের জন্যই অনুসরণীয় : মুহিত   |   আবহাওয়া : নৌবন্দরসমূহে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ভারতের দক্ষিণাঞ্চলে নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৯ জনের মৃত্যু * পুতিনের সাথে অনানুষ্ঠানিক বৈঠকের জন্য রাশিয়া সফরে মোদি * মাদুরো বিরোধীদের উচিত নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করা : ভেনিজুয়েলার বিরোধীদল * বাস-ট্রাকে সংঘর্ষে মধ্যপ্রদেশে নিহত ৯   |   খেলাধুলার সংবাদ : রোম মাস্টার্সের অষ্টম শিরোপা জিতে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে ফিরলেন নাদাল * চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালের জন্য রিয়াল প্রস্তুত : জিদান   |   

বিশ্ব ব্যাংকের ১১০ মিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তা চুক্তি স্বাক্ষর

ঢাকা, ১৭ মে, ২০১৮ (বাসস) : বাংলাদেশ সরকার এবং বিশ্ব ব্যাংক বুধবার একটি ঋণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে। বিশ্ব ব্যাংক এই চুক্তির আলোকে বাংলাদেশকে ১১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের অর্থ সহায়তা দিবে।
১১০ মিলিয়ন টেকসই এন্টারপ্রাইজ প্রকল্প (এসইপি) উৎপাদন এবং কৃষি ভিত্তিক বাণিজ্য সেক্টরে পরিবেশ বান্ধব প্রায় ২০ হাজার ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা সৃষ্টি করতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে। উদ্ভাবনী, পরিবেশ বান্ধব টেকসই প্রযুক্তির জন্য ক্ষুদ্র এন্টারপ্রাইজে এই ঋণ দেয়া হবে।
অথনীতি সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব কাজী শফিকুল আজম এবং বিশ্ব ব্যাংকের বাংলাদেশ, ভূটান ও নেপাল বিষয়ক কান্ট্রি ডিরেক্টর কিমিয়াও ফ্যান আজ বিকেলে রাজধানীর শেরে বাংলানগরে ইআরডিতে সরকার ও বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। ৩৮ বছর মেয়াদে শূন্য শতাংশ সুদ এবং শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ সাভির্স চার্জে বাংলাদেশকে এই ঋণ দেয়া হচ্ছে।
চুক্তি স্বাক্ষর শেষে ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আজম বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশ সরকার একটি সবুজ পরিচ্ছন্ন এবং অধিক জলবায়ু সহিষ্ণু অর্থনীতি গড়ে তুলতে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিয়েছে। তিনি বলেন, এই প্রকল্প গতিশীল ও অধিক টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জনে অবদান রাখবে।
বিশ্বব্যাংক কান্ট্রি ডিরেক্টর কিমিয়াও ফান বলেন, সারাবিশ্বে দারিদ্র বিমোচন এবং টেকসই প্রবৃদ্ধি অর্জনে আমরা ক্লিন, গ্রীন ও জলবায়ু প্রযুক্তি সহায়তা দিচ্ছি। তিনি বলেন, প্রকল্পটি বাংলাদেশে মানসম্পন্ন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, প্রতিযোগিতামূলক ও প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক হবে।
দেশের অধের্ক জনগোষ্ঠি জীবন ধারনের জন্য ৭ মিলিয়ন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তার ওপর নির্ভর করে। তবে এদের ৯০ ভাগই নেতিবাচক পরিবেশের শিকার। ২০১৪ সালের এক জরিপে দেখা গেছে, মাত্র ৬ ভাগ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা যথাযথভাবে বর্জ্য অপসারণ করেছে। প্রকল্পটি পরিবেশ দূষণ হ্রাস এবং জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে ক্লিনার প্রযুক্তি ব্যবহারে সহায়ক হবে।
বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের উন্নয়ন অংশীদারদের মধ্যে বিশ্ব ব্যাংক অন্যতম। বিশ্ব ব্যাংক সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এ পর্যন্ত বাংলাদেশকে ২৮ বিলিয়নেরও বেশি মঞ্জুরী সহায়তা ও সুদ মুক্ত ঋণ দিয়েছে। বাংলাদেশ বিশ্ব ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি সুদমুক্ত ঋণ গ্রহীতা।