ঢাকা, বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

আন্তর্জাতিক সংবাদ : যুক্তরাষ্ট্রের সাথে উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে সম্পর্ক জোরদারের অঙ্গীকার কিউবা ও উ.কোরিয়ার * চীনে নির্মাণ স্থলে মাচান ভেঙ্গে নিহত ৫, আহত ৩   |    অর্থনীতি : জয়পুরহাটে বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষ হচ্ছে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : চীনে নির্মাণ স্থলে মাচান ভেঙ্গে নিহত ৫, আহত ৩   |    বিভাগীয় সংবাদ : সুনামগঞ্জের কৃষকরা বোরো মৌসুমের ক্ষতি পোষাতে মরিয়া * বরগুনাসহ দক্ষিণাঞ্চল রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আসছে * নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে হাঁস পালনে স্বাবলম্বী সাবিনা   |   

বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা প্রকল্প শেষ পর্যায়ে : ৫৯ জেলার ওপর বই প্রকাশিত

ঢাকা, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ (বাসস) : বাংলা একাডেমির বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা প্রকল্পএর কাজ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে।
দেশের ৬৪টি জেলার লোকজ সংস্কৃতির ওপর কাজ শুরু করে এই প্রকল্পের অধীনে চলতি মাস পর্যন্ত ৫৯ জেলার ওপর ৫৯টি লোকজ সংস্কৃতি বিয়ষক বই প্রকাশ করেছে বাংলা একাডেমি। বাকি ৫টি জেলার ওপর বই প্রকাশের কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে।
বাংলা একাডেমি থেকে বাসসকে জানান হয়, দেশের ৬৪ জেলার লোকজ সংস্কৃতির ওপর বাংলা একাডেমির এই প্রকল্পটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও বড়মাপের একটি প্রকল্প। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ২০১২ সালে বাংলা একাডেমি বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা প্রকল্পের কাজ শুরু করে। সেই থেকে চলতি মাস পর্যন্ত ৫৯ জেলার ওপর ৫৯টি বই প্রকাশ করা হয়েছে। বাকী পাঁচটি জেলার মধ্যে কুষ্টিয়া ও সাতক্ষীরা জেলার বই ছাপা হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জ,ঢাকা ও চট্টগ্রাম এই তিন জেলার ওপর কাজ চলছে। এই পাঁচটি জেলার কাজ শেষ হলেই প্রকল্পটি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়িত হবে।
প্রকাশিত বইগুলোতে সংশ্লিষ্ট জেলার ওপর সংস্কৃতির নানা বিষয় ও সংস্কৃতির ইতিহাস উঠে এসেছে। জেলার পরিচিতি,নামকরণ,প্রতিষ্ঠাকাল,ভৌগলিক অবস্থান,বনভূমি ও গাছপালা,সংক্ষিপ্ত ইতিহাস,জনবসতির পরিচয়,নদ-নদী ও খাল-বিল, শিক্ষা, ব্যবসা-বাণিজ্য সংস্কৃতি, স্থাপনা, রাজনৈতিক ঐতিহ্য ও ব্যক্তি, শিল্পী, গায়ক, কবিয়াল, লোকসাহিত্যর গল্প, কাহিনী, কিসসা, কিংবদন্তি, লোকপূরাণ, লোকশিল্প, লোক সংগীত, লোকখাদ্য, লোকবাদ্য যন্ত্র, লোকস্থাপত্য, বিভিন্ন ধরনের গান, লোক উৎসব, লোকনাট্য, লোক ক্রীড়া, লোক পেশাজীবী গ্রুপ, লোক চিকিৎসা, লোকমেলা, ধাঁধা, প্রবাদ-প্রবচন, লোক ছড়া, ভাটকবিতা, লোক বিশ্বাস, লোক সংস্কার, লোক প্রযুক্তিসহ সংস্কৃতির বিপুল অঙ্গণের বিপুল তথ্যাবলী তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিটি বই অত্যন্ত উন্নতমানের ছাপা। বইগুলো দ্ইুশ থেকে শুরু করে ছয়শ পৃষ্ঠা পর্যন্ত রয়েছে।
প্রকাশিত ৫৯টি বইয়ের শিরোনাম হচ্ছে বাংলা একাডেমি, বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা। এই নামের সাথে সংশ্লিষ্ট জেলার নামটিও শিরোনামে রয়েছে। এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছেন একটি সম্পাদনা কমিটি। প্রধান সম্পাদক হচ্ছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক হচ্ছেন মো. আলতাফ হোসেন (তৎকালীন সচিব), সহযোগী সম্পাদক ও প্রধান সমন্বয়কারী হচ্ছেন একাডেমির উপ-পরিচালক আমিনুর রহমান সুলতান।
প্রকাশিত বইগুলোর প্রধান সম্পাদক, লোক গবেষক ও বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান প্রসঙ্গ কথা শীর্ষক ভূমিকায় প্রকল্পের ওপর নির্দেশনাসহ সংশ্লিষ্ট জেলার লোকজ সংস্কৃতি সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন। ভূমিকায় তিনি বলেন, বাংলা একাডেমি তার জন্মলগ্ন থেকেই বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ফোকলোর উপাদান সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও গবেষণার প্রয়াস চালিয়ে আসছে। এ লক্ষ্যে একটি ফোকলোর বিভাগও গঠন করা হয়। লোকজ সংস্কৃতি বিষয়ক দেশব্যাপী বিস্তৃত তথ্য উপাদান নিয়ে আমরা প্রকাশ করছি বাংলা একাডেমি- বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা।
তিনি বলেন, ফোকলোর চলমান এবং বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ক্ষুদ্র গ্রুপসমূহের মধ্যে শিল্পিত সংযোগের এক শক্তিশালী মাধ্যম। বর্তমান যুগ সংযোগের যুগ। দেশের বিভিন্ন স্থানে স্থানীয় গ্রুপসমূহের মধ্যে লোকজ উপাদানসমূহের কিভাবে সাংস্কৃতিক ও শিল্পসম্মত সংযোগ তৈরি হচ্ছে তা জানা ও বোঝার জন্য ফোকলোরের গুরুত্ব সামান্য নয়। এই চিন্তা থেকেই বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় প্রকল্পটি বাস্তবায়য়িত হচ্ছে।
প্রকল্পের সহযোগী সম্পাদক ও একাডেমির উপ-পরিচালক আমিনুর রহমান সুলতান জানান, গত কয়েকটি অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এই সিরিজের বই বিপুল পরিমাণ বিক্রি হয়েছে। ময়মনসিংহ ও মাদারীপুর জেলার ওপর বই দুটি পুনর্মুদ্রণ হয়েছে। আরো কয়েকটি জেলার বই বিক্রয় শেষ হয়ে গেছে। প্রকাশিত প্রতিটি বই হচ্ছে জেলাগুলোর লোকজ সংস্কৃতির ইতিহাস। জেলাগুলোর উৎপত্তি, মানব বসতি থেকে শুরু করে প্রাচীন সংস্কৃতির উপাদানসমূহ বইগুলোতে তুলে ধরা হয়েছে।