ঢাকা, সোমবার, মে ২৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ জন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহত * আগামীকাল নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস   |   রাষ্ট্রপতি : মাতৃমৃত্যু ও নবজাতকের মৃত্যুহার কমাতে প্রয়োজন জনসচেতনতা : রাষ্ট্রপতি * প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, প্রধান বিচারপতি ও মন্ত্রিপরিষদ সদস্যদের সম্মানে রাষ্ট্রপতির ইফতার   |   প্রধানমন্ত্রী : ইপিজেডসমূহে পরিবেশের মান রক্ষায় কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর * জাতীয় উন্নয়নে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সুরক্ষা অপরিহার্য : প্রধানমন্ত্রী   |    জাতীয় সংবাদ : বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রশংসা করেছে যুক্তরাজ্য পার্লামেন্ট * দেশে সর্বোচ্চ ১০ হাজার ৬৯৯ মেগাওয়াট রেকর্ড পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন * সেতুবন্ধন গড়তে সরকারি কর্মচারীদের মানসিকতা পরিবর্তনের আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর   |    জাতীয় সংবাদ : পাঠ্যপুস্তকে তামাকের ক্ষতিকর দিক তুলে ধরা হবে : নুরুল ইসলাম নাহিদ * বার কাউন্সিল নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিতদের জয়জয়কার * মাদক বিরোধী অভিযানে যারা মারা যাচ্ছে তাদের কেউই নিরীহ নয় : ওবায়দুল কাদের   |   খেলাধুলার সংবাদ : লিভারপুলকে কাঁদিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের হ্যাটট্রিক শিরোপা জয় করলো রিয়াল মাদ্রিদ *ফাইনালের ভুলের জন্য ক্ষমা চাইলেন লিভারপুলের গোলরক্ষক লোরিস কারিয়াস   |    বিভাগীয় সংবাদ : জয়পুরহাটে ৭২ হেক্টর জমিতে তিল চাষ   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ক্যামেরুনের ইংরেজি ভাষাভাষী অঞ্চলে সংঘর্ষে নিহত ২২ * ট্রাম্প ১২ জুন সিঙ্গাপুরে কিমের সঙ্গে বৈঠকের অপেক্ষায় রয়েছেন * গাজা উপত্যকায় হামাসকে লক্ষ্য করে ইসরাইলের বিমান হামলা * সৌদি ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সকল পণ্য দোকান থেকে সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ কাতারের   |   

মিয়ানমারে সশস্ত্র দুটি জাতিগত গোষ্ঠী অস্ত্রবিরতিতে স্বাক্ষর করবে

নাইপিদো (মিয়ানমার), ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ (বাসস ডেস্ক) : মিয়ানমারের দুটি সশস্ত্র জাতিগত গোষ্ঠী মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে অস্ত্রবিরতিতে স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে। খবর বার্তা সংস্থা এএফপির।
সরকার আশা করছে এটা হবে শান্তি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বিজয়। সমালোচকরা অবশ্য এই চুক্তিকে ঠুনকো হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।
মিয়ানমারে পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে রক্তাক্ত সেনা অভিযানে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম প্রাণ বাঁচাতে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করলে সম্প্রতি মিয়ানমার বিশ্ববাসীর মনযোগ আকর্ষণ করে।
তবে এটা দেশটির গোলযোগপূর্ণ অঞ্চলগুলোতে বেশ কয়েকটি সংঘাতের মাত্র একটি অংশ।
মিয়ানমারে বেশ কয়েকটি জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠী স্বায়ত্বশাসনের দাবিতে রাষ্ট্রের সঙ্গে কয়েক দশক ধরে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।
পাঁচ দশকের সামরিক শাসনের অবসান ঘটিয়ে ২০১৬ সালে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুকির বেসামরিক প্রশাসন ক্ষমতা গ্রহণ করার পর তিনি বলেছিলেন, দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই তার প্রধান লক্ষ্য।
তবে তিনি তার প্রতিশ্রুতির সামান্যই রক্ষা করতে পেরেছেন। সীমান্ত এলাকাগুলোতে প্রায়ই মাদক সংক্রান্ত সহিংসতা দেখা দেয়। এতে হাজার হাজার লোক গৃহহীন হয়ে পড়েছে।
মঙ্গলবার নাইপিদো-তে নিউ মোন স্টেট পার্টি (এনএমএসপি এবং লাহু ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (এলডিইউ) ন্যাশনাল সিজফায়ার এগিমেন্ট (এনসিএ) চুক্তিতে স্বাক্ষর করবে। এরপর সরকার একে একটি প্রতিকী বিজয় বলে আখ্যায়িত করতে পারে। এরা আরো আটটি মিলিশিয়া বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত হবে। সুকির দায়িত্ব গ্রহণের আগে এরা এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিল।
এই গোষ্ঠী দুটি সেনাবাহিনীর সঙ্গে কিছু দিনের জন্য সরাসরি সংঘাতে জড়িয়ে না পড়লেও শক্তিশালী বিদ্রোহী জোটের অংশ। ওই জোট সাবেক সেনা সমর্থিত সরকারের অধীনে এনসিএ চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।