ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জুন ২৯, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : ভিশন ২০২১ অর্জনের ক্ষেত্রে এই বাজেট মাইলফলক: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী *নিয়ম মেনেই যৌথ প্রযোজনায় নবাব ওবস- মুক্তি দেয়া হয়েছে: প্রেসনোট *   |   জাতীয় সংসদ : জঙ্গি দমনে জিরো টলারেন্স নীতি আজ রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী * বাজেট বাস্তবায়নে সক্ষমতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ এরশাদের * বাংলাদেশ মাথাপিছু জাতীয় আয় এবং অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচকে প্রারম্ভ রেখা অতিক্রম করেছে : প্রধানমন্ত্রী   |   শিক্ষা : কারিগরি শিক্ষাই হবে দেশের ভবিষ্যৎ নির্মাণের মূল শক্তি : শিক্ষামন্ত্রী   |    বিভাগীয় সংবাদ : গোপালগঞ্জে পিক-আপ উল্টে নিহত-১, আহত-৮ *নবীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মা ও ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যু   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ভেনিজুয়েলায় সুপ্রিম কোর্টে হেলিকপ্টার হামলা *জাতিসংঘের রিফিউজি ক্যাশ কার্ড : বদলে দিচ্ছে লেবাননের মুদি দোকানীদের ভাগ্য * অস্ট্রেলিয়ায় বিমান বিধ্বস্ত : নিহত ৩ * ভেনিজুয়েলার সুপ্রিম কোর্টে হেলিকপ্টার দিয়ে হামলা, সতর্কাবস্থায় সেনাবাহিনী    |    জাতীয় সংবাদ : ঈদের সময় হাসপাতালেগুলোতে চিকিৎসা সেবার কোনো বিঘ্ন ঘটেনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী *শেখ হাসিনার সরকার সহায়ক সরকারের ভূমিকা পালন করবে : ওবায়দুল কাদের *বিশিষ্ট সঙ্গীতজ্ঞ সুধীন দাস আর নেই ॥ রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক    |   খেলাধুলার সংবাদ : ক্রীড়ামন্ত্রীকে বাদর বলে কটাক্ষ করায় এক বছর নিষিদ্ধ হলেন মালিঙ্গা   |   

কিবরিয়া হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণ ১৮ জানুয়ারি

সিলেট, ১১ জানুয়ারি ২০১৭ (বাসস) : সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও হবিগঞ্জ পৌরসভার সাময়িক বরখাস্ত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও জিকে গৌউছ।
তারা আজ সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মকবুল আহসানের আদালতে হাজিরা দেন। শুনানি শেষে আগামী ১৮ জানুয়ারি মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করেছে আদালত।
দ্রুত বিচার ট্রাইবুন্যালের পিপি এডভোকেট কিশোর কুমার কর বলেন, আরিফ ও গৌউছ ছাড়া আর কোনো আসামি আজ আদালতে হাজির করা হয়নি। কোন সাক্ষীও ছিলেন না।
২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যেরবাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভা শেষে ফেরার পথে গ্রেনেড হামলায় নিহত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়াসহ ৫ জন। এ ঘটনায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ খান বাদি হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেন। ২০১৫ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর মামলার বাদি আব্দুল মজিদ খানের সাক্ষ্য গ্রহণের মধ্যদিয়ে সাক্ষ্য গ্রহণ কার্যক্রম শুরু হয়। কিবরিয়া হত্যা মামলার পর এ ঘটনায় দায়ের করা বিস্ফোরক মামলায়ও অভিযুক্ত হন আরিফ ও গৌউছ।