ঢাকা, সোমবার, নভেম্বর ২০, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের প্রতি জার্মানী, সুইডেন ও ইইউর জোরালো সমর্থন   |   আবহাওয়া : আকাশ আংশিক মেঘলাসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে   |   জাতীয় সংসদ : প্রতিবন্ধীদের শিক্ষার মূল ধারায় নিয়ে আসতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী * সারাদেশে খাদ্য গুদাম সংস্কারের কাজ চলমান রয়েছে : খাদ্যমন্ত্রী * গার্মেন্টস পণ্য রপ্তানিতে গত অর্থবছরে ২৮,১৪৯ মিলিয়ন ডলার আয় হয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : সওগাত সম্পাদক মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিনের জন্মবার্ষিকী আগামীকাল   |   রাষ্ট্রপতি : প্রতিবন্ধীদের সম্পদে পরিণত করুন : রাষ্ট্রপতি * সুফিয়া কামালের জীবনাদর্শ ও সাহিত্যকর্ম তরুণ প্রজন্মকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করবে : রাষ্ট্রপতি   |   প্রধানমন্ত্রী : রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহযোগিতার প্রস্তাব জাপানের * রোহিঙ্গা সংকট প্রশ্নে বাংলাদেশের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ প্রিন্সেস সোফির * রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা মানবাধিকারের মৌলিক লঙ্ঘন : মার্কিন সিনেটর   |    জাতীয় সংবাদ : ভারতের সাথে সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করতেই রংপুর হামলা : ওবায়দুল কাদের * উন্নয়নের সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছাতে সমাজতন্ত্র কার্যকর চেতনা : তথ্যমন্ত্রী* কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী আগামীকাল    |    অর্থনীতি : বাংলাদেশে চীনের বিনিয়োগ আহ্বান করেছে এফবিসিসিআই * এবার ভ্যাট সম্মাননা কার্ড পাবে ব্যবসায়ীরা * ডিএসইর আজকের লেনদেনের পরিমাণ প্রায় ৯৭১ কোটি টাকা : দাম বেড়েছে ১৩৪টির   |    জাতীয় সংবাদ : নির্বাচন কমিশনের কাজে হস্তক্ষেপ করবে না সরকার : শাজাহান খান * অবকাঠামো উন্নয়নে সরকার ও এডিবির মধ্যে ২৬০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর * এমডিজির সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এসডিজি অর্জনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে : শিল্পমন্ত্রী   |   খেলাধুলার সংবাদ : সাহায্য সংস্থা ইউএসএইডের শুভেচ্ছাদূত হচ্ছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ *শীর্ষে থেকেই কাল কুমিল্লার মুখোমুখি ঢাকা; জয়ের ধারায় ফেরার লক্ষ্য রংপুর ও সিলেটের *জন্মদিনে ড্যাডসওয়েলের বিশ্ব রেকর্ড ৪৯০ রান   |    জাতীয় সংবাদ : রসিক নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করার জন্য যা যা দরকার কমিশন তাই করবে : সিইসি * চলচ্চিত্র একটি দেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের স্মারক : সংস্কৃতিমন্ত্রী * এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো সুযোগ নেই : প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী    |    বিভাগীয় সংবাদ : চাঁদপুরের কল্যাণপুর ইউপিতে ১ বছরে ৩ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন * প্রাথমিক সমাপনীতে চাঁদপুরে ৫৪ হাজার ৭শ, ৫৬ পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : বেইজিংয়ে অগ্নিকান্ডে ১৯ জনের মৃত্যু, আহত ৮ * জিম্বাবুয়েতে সেনাপ্রধানের সাথে মুগাবের সাক্ষাৎ * আইএসর হাতছাড়া পুরো ইরাক * শ্রীলঙ্কায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা : সৈন্যরা সতর্কাবস্থায়   |   

ষোড়শ সংশোধনী মামলার রায় কারো কাছেই গ্রহণযোগ্যতা পায়নি : প্রধানমন্ত্রী

সংসদ ভবন, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (বাসস) : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সংসদ নেতা বুধবার দেশের গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী মামলার রায় কারো কাছেই গ্রহণযোগ্যতা পায়নি।
তিনি গতকাল জাতীয় সংসদে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের জন্য আনিত প্রস্তাবের সমর্থনে প্রদত্ত বক্তৃতায় একথা বলেন।
প্রধান বিচারপতির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রায়ে সংসদকে এভাবে হেয় প্রতিপন্ন করা, মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে হেয় করা বা তাঁর ক্ষমতা কেড়ে নেয়ার চেষ্টা, জাতির পিতার সম্পর্কে কথা বলা বা আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম বা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রশ্ন তোলা- এটাতো একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে বা একজন স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে কারো কাছেই গ্রহণযোগ্য নয়।
শেখ হাসিনা বলেন, কাজেই যে রায় দেয়া হয়েছে, তা কারো কাছেই গ্রহণযোগ্যতা পায়নি।
উনি (প্রধান বিচারপতি) তার রায়ে আর একটি বিষয় উল্লেখ করেছেন, কেবিনেট যেভাবে সিদ্ধান্ত নেয় সেভাবে নাকি সংসদ চলে।
সরকার প্রধান বলেন, এটা সম্পূর্ণ ভুল ব্যাখ্যা সংসদ চলে সংবিধান মোতাবেক এবং সংসদ কিভাবে চলবে সেখানে তার কার্যপ্রণালী বিধিও দেয়া রয়েছে। আর এই কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী কার্যউপদেষ্টা কমিটি রয়েছে। যার সভাপতিত্ব করেন স্পিকার। সংসদ কতদিন চলবে, কি কি আলোচনা হবে- তার সবকিছুই কার্যউপদেষ্টা কমিটিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কাজেই এখানে কেবিনেটের কোন ভূমিকাই নেই। মানে উনি এই বিবিধ ধরনের কথা বলতে গিয়ে নিজেকেও প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধান বিচারপতি আমাদের পার্লামেন্ট, গণতন্ত্র- সবকিছুকেই একটি প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছেন। কাজেই এখানে তার উদ্দেশ্য কি সেটাই আমার প্রশ্ন।
শেখ হাসিনা বলেন, কাজেই আমি এটুকুই বলতে চাই যে, এই সংসদই সার্বভৌম এবং পার্লামেন্টই সংবিধান রচনা করে। পার্লামেন্টই জনগণের অধিকার সুরক্ষিত করে এবং এই পার্লামেন্ট গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত করে।
তিনি বলেন, আর এই পার্লামেন্ট যে আইন পাস করে সেই আইন দ্বারাই বিচার বিভাগ এবং নির্বাহী বিভাগ চলে। আইন সভা, বিচার বিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ এই তিনটিই ওই আইনের দ্বারাই চলে যে আইন সংসদ তৈরি করে দেয়।
রায়ের পর বিএনপির মিষ্টি বিতরণের ঘটনায় হতবাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দেখলাম- বিএনপি খুবই উৎফুল্ল হলো, মিষ্টি বিতরণ করলো। তার একটাই কারণ হতে পারে, ওই রায়তেই আবার তাদের মার্শাল ল দেয়া, অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল-এগুলোও কিন্তু বলা রয়েছে।
এটাও বলা রয়েছে, জিয়া মার্শাল ল দিয়ে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল এবং এটা যে ব্যানানা রিপাবলিক করেছিল, সেটাও কিন্তু বলা আছে। তাই এতোদিন পর আমাদের কথাই মেনে নিয়ে তারা মনে হয় ওইটা দেখেই খুশি হয়ে গেছে। অথবা তারা রায় ভালোভাবে দেখেননি বা পড়েননি।
তিনি বলেন, সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল মার্শাল ল দ্বারা করা এবং সেটাকেই ফিরিয়ে আনাতেই তারা উৎফুল্ল। অর্থাৎ যেটা উচ্চ আদালতের রায় মার্শাল ল দিয়ে যা যা করা হয়েছে, তা অবৈধ। এই অবৈধ জিনিসকে যখন বৈধতা দিতে গেছে, তখন ওইটুকুতেই তারা খুশি হয়ে গেছে, বাকিটা আর দেখেনি।
গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখার আহবান পুনর্ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্রকে আমাদের সমুন্নত রাখতে হবে। জনগণের যে অধিকার এবং ভোটের অধিকার তাকে সমুন্নত রাখতে হবে। গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা ছাড়া দেশের উন্নতি হয় না। তাই এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে হবে। সে লক্ষ্যেই আজকে এই সংসদ জনগণের আশা-আকাঙ্খা পরিপূরণ করছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সংবিধানের ৭ম অনুচ্ছেদের প্রজাতন্ত্রের মালিক করা হয়েছে এই জনগণকে।

সম্পর্কিত সংবাদ