ঢাকা, শনিবার, এপ্রিল ২১, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : সাইবার অপরাধের বিরুদ্ধে কমনওয়েলথের দৃঢ় অবস্থান   |    জাতীয় সংবাদ : প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পরই মহার্ঘ্য ভাতা সম্পর্কিত প্রজ্ঞাপন : ইনু * বিসিএসআইআর মডেল রাস্তা নির্মাণে জাপানের টুইস্টার টেকনোলজি ব্যবহার করবে * জাতিসংঘের ৫৪টি শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩২৮ জন শান্তিরক্ষীর অংশ গ্রহণ   |   খেলাধুলার সংবাদ : ইংল্যান্ডের নির্বাচক হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাবেক ব্যাটসম্যান স্মিথ *ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলবে না ভারত * ওয়েঙ্গারের উত্তরসূরী হিসেবে পাঁচজনকে বিবেচনা করা হচ্ছে * ওয়াটসনের সেঞ্চুরিতে জয়ের ধারায় ফিরলো চেন্নাই   |   আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে   |    বিভাগীয় সংবাদ : মেহেরপুরের মোমিনুলের আর্সেনিকমুক্ত প্লান্ট আবিস্কার *পিরোজপুর আধুনিক কারাগারের নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : উ. কোরিয়ার প্রতিশ্রুতিতে সন্তুষ্ট নয় জাপান *সিনেট প্যানেলে প্রত্যাখ্যাত হতে পারেন পম্পেও * অশালীন ভিডিও : সৌদি আরবে বন্ধ করে দেয়া হলো নারী শরীরচর্চা কেন্দ্র *পারমাণবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ প্রশ্নে ইতিবাচক পদক্ষেপ উ.কোরিয়ার   |   

সংসদে সেনানিবাস বিল-২০১৭ উত্থাপন

সংসদ ভবন, ১৪ নভেন্বর, ২০১৭ (বাসস) : বিদ্যমান আইনের সংযোজন-বিয়োজন তথা হালনাগাদ করে আজ সংসদে সেনানিবাস বিল-২০১৭ উত্থাপন করা হয়েছে।
সংসদ কার্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বিলটি উত্থাপন করেন।
বিলে সেনানিবাস প্রতিষ্ঠা, সীমানা নির্ধারণ, এলাকার অন্তর্ভুক্তির ফলাফল, সেনানিবাস বোর্ড তহবিল ব্যবস্থাপনা, হস্তান্তরিত তহবিল ও সম্পত্তির প্রয়োগ, আইনের কার্যকারিতা সীমাবদ্ধতা, অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠা, অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়, মহাপরিচালক ও তার সাময়িক দায়িত্ব, অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ, অধিদপ্তরের কার্যাবলী, সামরিক ভূমির শ্রেণী, সেনানিবাস বোর্ড এবং নির্বাহী কর্মকর্তা, বোর্ডের আইনগত মর্যাদা, সিটি কর্পোরেশন বা পৌরসভা গণ্য হওয়া, নির্বাহী কর্মকর্তা নিয়োগ ও দায়িত্ব, সেনানিবাসের শ্রেণী বিন্যাস, সেনানিবাস বোর্ড গঠন, বোর্ডের প্রেসিডেন্টের দায়িত্বসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিধানের প্রস্তাব করা হয়েছে।
বিলে বেসামরিক আবাসিক এলাকা, বাজার সংক্রান্ত কমিটি, প্রশাসনিক প্রতিবেদন, পরিদর্শন, নির্দেশ পালনে বাধ্য করার ক্ষমতা, সিদ্ধান্তের জন্য প্রেরিত বিষয়ে এরিয়া কমান্ডের ক্ষমতা, এ বিষয়ে সরকারের ক্ষমতা, বোর্ড বাতিলকরণ, করারোপ, আদায় ও পৌর দায়িত্বসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বিধানের প্রস্তাব করা হয়েছে।
বিদ্যমান আইনের উল্লেখিত ২৯২টি ধারার মধ্যে অনাবশ্যক ধারা বর্জন ও কিছু নতুন ধারা সংযোজন করে ১৬টি অধ্যায়ে ২১৮টি ধারা উত্থাপিত বিলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
বিলে বিদ্যমান কর দাবির নোটিশ ধারা-৯১ (২) এ ফির পরিমাণ ১ টাকার স্থলে ৫শ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
এছাড়া বিদ্যমান আইনে ৪৩টি বিষয়ে আর্থিক জরিমানার পরিমাণ যুক্তিযুক্তভাবে বৃদ্ধি করার প্রস্তাব করা হয়েছে। যেমন, তথ্য প্রদানের অবহেলা, দায় প্রকাশের বাধ্যবাধকতার ক্ষেত্রে ১শ টাকা জরিমানার স্থলে ২০ হাজার টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। দালান সমাপ্তকরণের ক্ষেত্রে সময়সীমা, জরিমানা ৩ বারের অধিক বর্ধিত হলে ২০ হাজার টাকা এবং ৫ বারের অধিক বর্ধিত করার প্রতি ক্ষেত্রে ৫০ হাজার টাকার জরিমানা করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ৩০ দিনের মধ্যে সংসদে রিপোর্ট দেয়ার জন্য বিলটি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ